1. admin@bangonews24.com : admin :
  2. bangonews024@gmail.com : bangonews24 :
  3. mahfuzlh07@gmail.com : mahfuz :
  4. nurnobifulkuri@gmail.com : nurnobifulkuri : Nurnobi Sarker
  5. prodip2354@gmail.com : tushar :
  6. vividwadud@gmail.com : vivid wadud :
সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:৫৫ পূর্বাহ্ন

কাঠমিস্ত্রি জসিম উদ্দিনের ‘লাইব্রেরি’

বঙ্গনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম
  • প্রকাশিত: সোমবার, ২৪ অক্টোবর, ২০২২

এসএম জামাল, কুষ্টিয়া:
চারচালা টিনশেডের ঘর, পাকা মেঝে, ঘরের ভেতর ছোট্ট র‌্যাক, তাতে থরে থরে সাঁজানো গল্প, উপন্যাস আর কবিতার বই। রয়েছে বাংলাদেশের ইতিহাসসহ হরেক রকমের বই। এই ঘরটিই এখন তাঁর জীবনের সব। এখানে জীবনের সঞ্চয় থেকে গড়ে তোলা তার ‘কমিউনিটি লাইব্রেরি’।

বলছিলাম কুষ্টিয়া জেলার খোকসা উপজেলা শহর থেকে ঢিল ছোঁড়া গ্রামের পাইকপাড়া-মির্জাপুর এলাকার কাঠমিস্ত্রি জসিম উদ্দিনের কথা।

জসিম উদ্দিন পড়ালেখা করেছেন ২য় শ্রেণি পর্যন্ত। শৈশবকালে বাবার নিরুদ্দেশের কারণে আর পড়ালেখা এগুতে পারেননি। তবে ছোটবেলা থেকে বইয়ের প্রতি যে দুর্বলতা তা এখনও রয়েই গেছে। পেশায় কাঠমিস্ত্রি হলেও শিক্ষা ছাড়তে একবারেই নারাজ জসিম।

তিনি এর নাম দিয়েছেন ‘কমিউনিটি লাইব্রেরি’। কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলার পাইকপাড়া-মির্জাপুর এলাকার কাঠমিস্ত্রি জসিম উদ্দিন পেশায় কাঠমিস্ত্রি হলেও শিক্ষাকেই জীবন চলার পথের পাথেয় করেছেন তিনি।
বইয়ের প্রতি নিজের আগ্রহের পাশাপাশি জ্ঞান বিস্তারে উদ্যোগী তরুণ তিনি। কাঠমিস্ত্রির কাজ করে যা আয় হয়, তার একটি অংশ তিনি বইপ্রেমীদের জন্য বরাদ্দ রাখেন। নিজের ঘরে ২০১৬ সালের দিকে গড়ে তোলেন ছোট্ট একটি সংগ্রহশালা। গল্প-উপন্যাসসহ প্রায় আড়াই হাজার বই রয়েছে তার এ সংগ্রহশালায়।

শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি অবসর সময়ে এ গ্রন্থাগারে ছুটে আসেন বয়স্করাও। জসিম উদ্দিনের ছোট্ট এ গ্রন্থাগারটি এখন পরিণত হয়েছে পরিপূর্ণ জ্ঞানপিপাসুর আড্ডাখানায়।
নিজে পড়ালেখা করতে পারেননি। তবে এতে তার একটুও আফসোস নেই। কারণ এলাকার মানুষের মধ্যে শিক্ষার আলো জ্বালাতে পারলেই নিজেকে ধন্য মনে করবেন বলে জানান জসিম উদ্দিন। এই মহৎ উদ্যোগের সারথি হয়েছেন তার সহধর্মিণী পপি খাতুনও।

গ্রন্থাগারটিকে এখন বড় পরিসরে গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখেন জসিম উদ্দিন। তিনি এখানে হরেক রকমের বইদানের জন্য দেশের বিত্তবানদের কাছে আহ্বান জানিয়ে থাকেন। তার এ ডাকে সাড়াও মিলেছে। অনেকে গ্রন্থাগারটি পরিদর্শন করে বই দিয়েছেন। পাশাপাশি তিনি বই কেনেন নিজ খরচে।

সদস্য সংগ্রহ করেন বিনা পয়সায়। ‘কমিউনিটি লাইব্রেরি’র সদস্য হতে কোনো ফি লাগে না। সদস্যরা নানারকম বই পড়তে পারেন বিনামূল্যে। ধারও নিতে পারেন। এলাকার পিছিয়েপড়া সব বয়সী মানুষকে বই পড়ার প্রতি উৎসাহ জোগাতেই জসিম এমন উদ্যোগ নিয়েছেন।

জসিম উদ্দিন জানান, আমার বয়স যখন ১০ বছর, তখন আমার বাবা মারা যান। এ বয়সেই সংসারের দায়িত্ব নিতে হয় আমাকে। বাড়ির পাশের এক কাঠমিস্ত্রির সাহায্যকারী হিসেবে কাজ শুরু করি। সেখান থেকে যা পেতাম, তা দিয়েই সংসার চলত। আমি মাঝে মধ্যে বই সংগ্রহ করে পড়তাম; অন্যকেও পড়তে দিতাম। ধীরে ধীরে এর পরিমাণ বাড়তে থাকে। এক সময় এ রকম একটা গ্রন্থাগার গড়ার সিদ্ধান্ত নিই। শুরুতে আমার আগের পড়া কিছু বই আর কিছু কিনে প্রায় ১০০-র মতো বই নিয়ে আমার এ গ্রন্থাগারের কার্যক্রম শুরু করি। এখন আমার লাইব্রেরীতে প্রায় আড়াই হাজার বিভিন্ন ধরনের বই রয়েছে। তবে এসব বইয়ের এক তৃতীয়ায়াংশ বিভিন্ন অনুদান, লেখক ও সাহিতি্যকসহ এখানে বেড়াতে আসা বিভিন্ন ব্যক্তির দেয়া।

অভিভাবকরা মনে করেন, শিশুরা শুধু পাঠ্যবই পড়বে; তবে বিষয়টি এখানেই সীমাবদ্ধ নয়। তিনি স্বপ্ন দেখেন, তার পাঠাগারে হরেকরকমের ভালো বই থাকবে, মানুষ বই পড়ার জন্য পাঠাগারে ভিড় জমাবে। মানুষকে বই পড়ানোর ব্যবস্থা করবেন এমন চিন্তা বিরাজ করছিল জসিমের মনের গহীনে। সে স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। তার বিশ্বাস, গ্রামের কম শিক্ষিত মানুষগুলো বই পড়ার মাধ্যমে অন্য এক উচ্চতায় যেতে পারবে। সে ভাবনা থেকে আজকের এই কমিউনিটি লাইব্রেরি।

এলাকার মানুষ বই পড়ে আলোকিত হবে, এই আশা প্রকাশ করে জসিম উদ্দিন বলেন, আমি এখনও বিত্তশালীদের কাছে বইয়ের ভিক্ষা চেয়ে থাকি। বই ভালো লাগে। ধীরে ধীরে সেলফের সংখ্যাও বেড়েছে। এভাবেই একটা সময় আমার লাইব্রেরিতে বইয়ের সংখ্যা বাড়বে। গ্রন্থাগারটিতে বসার জায়গা না থাকায় অনেকে বাড়িতে নিয়ে গিয়ে বই পড়েন। অনেকে মেঝেতে বসেও পড়েন। এলাকার সব শ্রেণি, পেশা ও বয়সের মানুষ এ গ্রন্থাগারের পাঠক। তবে এখন অনেক বেশি শিশু কিশোর পাঠকরা বই পড়তে আসে। সে তুলনায় আমার এখানে শিশুতোষের বই তেমন নেই। এজন্য আরও বেশি শিশুতোষ বই হলে অনেক ভালো হয় বলেও জানান তিনি।

বর্তমানে এ পাঠাগারে যারা পড়তে আসেন বা বই ধার নেন, তারা বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ। কিশোর-কিশোরী, যুবক-যুব মহিলা, বৃদ্ধ-বৃদ্ধাসহ যে কেউ এর সদস্য হতে পারেন। তার ভাষায়, শুধু স্কুলের ছেলেমেয়েরাই নয়, যারা উচ্চশিক্ষা নিচ্ছেন, তারাও আমার পাঠাগার থেকে বই নেন। এমনকি বয়স্ক ও সদ্য বিবাহিতরাও বই নিয়ে যান। আমার মতো খেটে খাওয়া মানুষও আসে। এতেই তার স্বপ্ন পূরণ হয়েছে বলে মনে করেন। তবে এ লাইব্রেরিটিকে আরও বড় পরিসরে নিয়ে যেতে চান তিনি।
লাইব্রেরিতে বসে বই পড়ছিলেন পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থী রোহানী। তিনি বলেন,. আমার এখানে এসে শিশুদের গল্পের বই পড়তে অনেক ভালো লাগে। তবে যা অল্প শিশুদের বই ছিলো তা পড়া হয়ে গেছে। আরও শিশুদে;র বই হলে অনেক ভালো হয়।

স্কুল শিক্ষক শহিদুল ইসলাম জানান, জসিমের ব্যক্তিগত উদ্যোগে গড়ে তোলা এই গ্রন্থাগারের জনপ্রিয়তা দিনদিন বেড়েই চলেছে। প্রতিনিয়ত বাড়ছে সদস্যসংখ্যা। একজন সামান্য কাঠমিস্ত্রি হয়েও জসিম এখন গোটা খোকসা উপজেলার একজন আলোচিত মানুষ।

লাইব্রেরিতে বসে বই পড়ছিলেন সাদিক হাসান রহিদ। তিনি বলেন, বই পড়তে আমার ভীষণ ভালো লাগে। আমার অন্যসব বন্ধুরা মোবাইলে গেম খেলে সময় পার করে। অথচ আমি এখানে এসে বই পড়ি। আমার খুব ভালো লাগে। মাঝে মাঝে এখান থেকে বই নিয়ে গিয়ে বাসায় বসে পড়ি। এতে করে কখনো এই লাইব্রেরি মালিক জসিম উদ্দিন বিরক্ত হননা।

কুষ্টিয়ার লেখক ও সাহিত্যিক হাসান টুটুল বলেন, ব্যক্তি উদ্যোগে জসিমের কমিউনিটি লাইব্রেরি গড়ে তোলার বিষয়টি প্রশংসনীয়। এ লাইব্রেরির জনপ্রিয়তা দিন দিন বেড়েই চলেছে। প্রতিনিয়ত লাইব্রেরির সদস্য বাড়ছে। একজন সামান্য কাঠমিস্ত্রি হয়েও জসিম এখন শুধু শিমুলিয়া গ্রাম নয়, গোটা খোকসা উপজেলার একজন আলোচিত মানুষও।

শেয়ার করুন




এই বিভাগের আরও খবর










আপনার জন্য নির্বাচিত




© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২১
ঢাকা,বাংলাদেশ থেকে প্রকাশিত বঙ্গ নিউজ ২৪.কম